ব্রণ নিয়ে কথা

ব্রণ সবসময় ও নিরীহ হোয়াইট হেড বা ব্লাক হেড হিসেবেই থাকে না, মাঝে মধ্যে লালচে হয়, ব্যথাও করেব্রণ হতে পারে মুখে, ঘাড়ে, কাঁধে, বুকে, পিঠেবয়:সন্ধিকাল আর উঠতি তরুণ-তরুণীরাই ব্রণের প্রধান শিকারব্রণের দাগ অবশ্য দীর্ঘ সময় ধরে তার স্মৃতিচিহ্ন রেখে যায় 

চামড়ার নিচে থাকে তৈলগ্রন্থি আর তৈল নি:সারক নালীএই নালী ব্যাক্টেরিয়া বা অন্য কোনো কারণে বìধ হয়ে গেলে নালীর মধ্যে নি:সৃত পদার্থ জমা হয়ে ব্রণ তৈরি করে 

ব্রণের কিছু কারণ হলো­ ·        বয়:সন্ধিকালে এন্ড্রোজেন হরমোনের আধিক্য ·        মাসিক বা গর্ভাবস্খায় হরমোনের মাত্রার পরিবর্তন ·        ঘন ময়েশ্চারাইজিং লোশন বা কড়া মেকআপ ·        অধিক আবেগ ·        আয়োডিনযুক্ত খাবার যেমন সামুদ্রিক শৈবাল, গরুর কলিজা, রসুন ইত্যাদি ·        কেরোসিন বা কয়লা (যেমন- বাসার ফার্নিচারের বার্নিশ) ·        একদিকে কাত হয়ে ঘুমানো বা হাতের ওপর মুখ রেখে ঘুমানো ·        জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি, স্টেরয়েড, খিঁচুনি বা মানসিক রোগের ওষুধ 

কারণগুলো কঠিন হলেও অধিকাংশ ব্রণের চিকিৎসা শুধু আত্মসচেতনতার মাধ্যমেই সম্ভবপ্রয়োজনে ডাক্তারের পরামর্শও নিতে হতে পারেব্রণ মূলত টিনএজারদের শত্রুনিজেকে ঝকঝকে রাখার এই বয়সে এ বড় অসহনীয় উৎপাত 

ব্রণের অনেক কারণ আছেতবে অকারণে ভয় পাওয়া ঠিক নয়যেমন ধরুন আঠালো খাবার, চকলেট কিংবা যৌনতা কিন্তু ব্রণ ঘটায় না 

টিনএজারদের ক্ষেত্রে ব্রণের প্রধান কারণ অতিরিক্ত এন্ড্রোজেন নি:সরণএর ফলে বেশি তৈল নি:সৃত হয় যা জমা হয়ে ব্রণ তৈরি হয়শিশুদের এমনকি নবজাতকেরও মায়ের হরমোনের কারণে ব্রণ হতে পারেব্রণের জন্য উদ্বিগ্ন হবেন না, কারণ উদ্বিগ্নতাই ব্রণের প্রধান কারণ 

নিজে পরিচর্যার কৌশল  

যথারীতি ব্রণের জন্য সময়ই সবচেয়ে বড় চিকিৎসকতবুও সচেতন হোন এবং নিজের পরিচর্যা করুন :  

·        ত্বক পরিচ্ছন্ন রাখবেনসাবান সামান্য সময় রেখে পরিষ্কার কাপড়ে ত্বক পরিষ্কার করবেন·        ভালো এসট্রিনজেন্ট বা গ্রিজ পরিষ্কারকারক ব্যবহার করুন·        ত্বকে অত্যাচার করবেন নাচাপাচাপি, চুলকানো বা খোঁটাখুঁটি করা একদম হারামএ জন্যই ব্রণে ইনফেকশন হয় এবং এমন দাগ পড়ে যা সহজে সারে না? মুখে বা অন্য কোথাও ঘাম হলে দ্রুত পরিষ্কার করুন? সপ্তাহে অন্তত দুবার চুল ধোবেন এবং চুল মুখ থেকে দূরে রাখবেন? আঠালো, তৈলাক্ত ক্রিম, লোশন বা মেকআপ বাদ দিয়ে শুধু ওয়াটারবেসড মেকআপ ব্যবহার করুন 

পুরুষের জন্য  

·        শেভের আগে কিছু সময় মুখে জড়িয়ে রাখুন ঈষৎ উঞ্চ তোয়ালেআগে দাড়ি নরম হোক, পরে শেভচুল যেদিকে বাড়ে তার উল্টোদিকে রেজার চালাবেন না? রোদে ঘোরাঘুরি এড়িয়ে চলুনরোদ কারোরই বìধু নয় 

ডা. ওয়ানাইজাচেম্বার : আয়ুব ক্লিনিক, ৪৬-৪৭ জনসন রোড, ঢাকাফোন : ৭১১৩৯৬০দৈনিক নয়া দিগন্ত, বৃহস্পতিবার, ২৬ এপ্রিল ২০০৭, ১৩ বৈশাখ ১৪১৪, ৮ রবিউস সানি ১৪২৮

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s