সিআরপি’র মূল অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে গেছে : বেতন ভাতা নিয়ে অনিশ্চয়তা

নিজস্ব প্রতিবেদক
দৈনিক নয়াদিগন্ত, ১২ জুন ২০০৭

পক্ষাঘাতগ্রস্তদের পুনর্বাসন কেন্দ্রের (সিআরপি) প্রধান অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে গেছে। সিআরপি’র ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্যদের মধ্যে ঐকমত্য না থাকায় ব্যাংক কর্তৃপক্ষ অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিয়েছে বলে জানা গেছে। জানা গেছে, সিআরপি’র মূল অ্যাকাউন্ট রয়েছে স্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকে। অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আগামী মাস থেকে এ প্রতিষ্ঠানটিতে কর্মরত স্টাফরা বেতন না পাওয়ার অনিশ্চয়তায় ভুগছেন। এ কারণে তারা প্রধান উপদেষ্টা বরাবর একটি স্মারকলিপি দিয়েছেন সিআরপিতে সৃষ্ট অচলাবস্খার সমাধান করার জন্য। মূল সিআরপিসহ প্রতিষ্ঠানের অন্যান্য শাখার ২৭৫ জন কর্মকর্তা ও কর্মচারী প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা ভ্যালেরি এ টেইলরের কাছে সর্বময় ক্ষমতা ও দায়িত্ব দিয়ে সিআরপি’র সব ট্রাস্টির পদত্যাগের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধান উপদেষ্টার মাধ্যমে। স্মারকলিপিতে তারা বলেছেন, ‘কিছু হীন মানুষের স্বার্থের পরিপন্থী কাজ করায় নিজের গড়া প্রতিষ্ঠান থেকেই ভ্যালেরিকে সরিয়ে দেয়ার চক্রান্ত চলছে। আমরা অবগত হয়েছি যে সিআরপি ট্রাস্টি বোর্ড ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সরকারের বিভিন্ন সংস্খায় প্রতিবেদন পাঠিয়ে বলা হচ্ছে ট্রাস্টিদের কর্মকাণ্ডে স্টাফদের পূর্ণ সম্মতি রয়েছে। আমরা দৃঢ়ভাবে তাদের এ দাবির বিরোধিতা করছি।’ সিআরপি সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে স্থানীয় ব্যাংকে যে অ্যাকাউন্ট আছে তা থেকে সিআরপি’র দৈনন্দিন খরচ মেটানো হচ্ছে। তবে এটা বেশিদিন টিকবে না। আগামী মাস থেকেই সিআরপি’র স্টাফদের প্রায় কোটি টাকার মতো বেতন-ভাতা বন্ধ হয়ে যাবে প্রধান অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে যাওয়ায়। জানা গেছে, ব্রিটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরীর সাথে সিআরপি’র ক’জন ট্রাস্টি বিষয়টি মীমাংসা করে দেয়ার জন্য দেনদরবার করছেন। আরো জানা গেছে, সাবেক পররাষ্ট্র সচিব ও উপদেষ্টা সি এম শফি সামী আনোয়ার চৌধুরীর মাধ্যমে চাচ্ছেন ভ্যালেরির সাথে একটি সমঝোতায় আসতে। উল্লেখ্য, দেশের বাইরে থেকে ২২ শতাংশ ডোনেশন আসে সিআরপি’র। এ উদ্দেশ্যে ক’দিন আগে আনোয়ার চৌধুরী ট্রাস্টিদের নিয়ে একটি বৈঠক করেন। বৈঠকে আনোয়ার চৌধুরী সিআরপি’র অচলাবস্খা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তবে কোনো প্রকার ঐকমত্য ছাড়াই বৈঠক শেষ হয়েছে বলে জানা গেছে। এদিকে সিআরপি’র অচলাবস্খা নিরসনে গঠিত নাগরিক কমিটি ইতোমধ্যেই প্রস্তাব দিয়েছে ট্রাস্টিদের পদত্যাগ করার জন্য। কারণ হিসেবে বলা হয়েছে, ‘যেহেতু ট্রাস্টিদের মধ্যে বর্তমানে কোনো ট্রাস্ট (বিশ্বাস) নেই, তারা সিআরপি’র স্বার্থে একযোগে কাজ করতে পারছেন না। তাই প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা ভ্যালেরি এ টেইলরের কাছে সব ক্ষমতা দিয়ে সব ট্রাস্টিকে পদত্যাগ করতে হবে।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s